এই দিন

বৃহস্পতিবার   ২১ জানুয়ারি ২০২১   মাঘ ৭ ১৪২৭   ০৭ জমাদিউস সানি ১৪৪২

৯১

সিদ্ধিরগঞ্জে জমি দখল করতে হামলা ও ভাংচুর 

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ৬ ডিসেম্বর ২০২০  

 সিদ্ধিরগঞ্জে এক দৃষ্টি প্রতিবন্ধী বৃদ্ধার জমি দখল করতে শফিউল হক গংদের বিরুদ্ধে হামলা ও ভাংচুরের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় থানায় জিডি করলে শফিউল হক ও তার পিতা মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হক মঙ্গলবার সকালে ওই বৃদ্ধার ছেলে ও ছেলের স্ত্রীর উপর হামলা করে। এ ঘটনায় বৃদ্ধার ছেলে রুবেল থানায় অভিযোগ দিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছে পরিবারটি। ঘটনাটি ঘটেছে সিদ্ধিগঞ্জের পশ্চিম কলাবাগ এলাকায়। বুধবার সরেজমিনে গেলে বৃদ্ধা শামছুন্নাহার জানায়, প্রতিপক্ষরা তাকে হুমকি দেয়ায় নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছে।

জানা যায়, সিদ্ধিরগঞ্জের পশ্চিম কলাবাগ এলাকার নুরু মেকারের স্ত্রী দৃষ্টি প্রতিবন্ধী বৃদ্ধা শামছুন্নাহার পৈত্রিক সুত্রে পাওয়া মাত্র ২ শতাংশ জমির নামজারী করে হাল নাগাদ খাজনাদী পরিশোধ করে স্বামী সন্তান ও পরিবার নিয়ে বসবাস করছে। তার প্রতিবেশি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হক ও তার ছেলে বৃদ্ধা শামছুন্নাহারের জমি দখল করার উদ্দেশ্যে নানাভাবে চেষ্টা করে আসছিল। গত ২৭ নভেম্বর শফিউল হক তার সহযোগী নয়ন, ফজল, হাবিব, বিহন, রিফাত ও আবু সিদ্দিকসহ আরও ১০/১২ জন নিয়ে জমি দখলের উদ্দেশ্যে বৃদ্ধার জমির সীমানার টিনের ভেড়া উপরে ফেলে ও বৃদ্ধার জমির উপর থাকা গাছ কর্তন করে। এতে তাদের লক্ষাধীক টাকার ক্ষয়্ক্ষতি হয়েছে বলে বৃদ্ধা জানায়। এসময় বৃদ্ধা শামছুন্নাহার ও তার ছেলে রুবেল বাধা দিতে গেলে তাদেরকে মারধর করাসহ নানা ভাবে হুমকি দেয়। এ ঘটনায় বৃদ্ধা শামছুন্নাহার সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি জিডি (নং- ১২২২) দায়ের করেন। জিডি করায় ক্ষিপ্ত হয়ে মঙ্গলবার সকালে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হক ও তার ছেলে শফিউল বৃদ্ধার বাড়িতে এসে তার ছেলে রুবেল ও ছেলের স্ত্রী লীজাকে মারধর করে। এক পর্যায়ে তাদেরকে টেনে হেঁচড়ে বাড়ির বাইরে নিয়ে গিয়ে লীজাকে শ্লীলতাহানি করে। 

এতে মারাত্মক আহত হয় লীজা। লীজা নারায়ণগঞ্জ ভিক্টোরিয়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ঘটনায় বৃদ্ধার ছেলে রুবেল বাদী হয়ে  মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হক ও তার ছেলে শফিউলের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ (নং ৬৭২৩) দায়ের করেন। গতকাল বুধবার ঘটনাস্থলে গেলে বৃদ্ধা হাউমাউ করে কেঁদে জানায়, হক মেম্বার ও তার ছেলে আমার শেষ সম্বল ২ শতাংশ জমি কেড়ে নিতে চাইছে। হক মেম্বার দীর্ঘ দিন ধরে জমিটি দখলের চেষ্টা করে আসছে। এনিয়ে স্থানীয় শালিশ বৈঠকে হক মেম্বার জমি পাওনা হয়নি। সে কোন শালিশ না মেনে জোরপূর্বক আমার জমি দখলের চেষ্টা করছে। জমি ছেড়ে না দিলে এবং থানায় অভিযোগ দায়ের করায় তারা আমার পরিবারকে হুমকি দিচ্ছে। আমরা অসহায় ও নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছি। 

এদিকে স্থানীয় একটি সুত্র জানায়, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হক মেম্বারের বিরুদ্ধে এলাকায় একাধিক জমি দখলের অভিযোগ রয়েছে। এছাড়াও হক মেম্বার উক্ত স্থানে একটি বহুতল ভবন নির্মাণ করবে। উক্ত ভবন সোজাভাবে স্থাপন করতে বৃদ্ধার এক শতাংশ জমির প্রয়োজন। তাই নানা ভাবে চেষ্টা করছে বৃদ্ধার জমি দখল করতে।   

বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হকের ছেলে শফিউল হক জানায়, ১৯৭৭ সালে ক্রয় করা আমার জমি উদ্ধার করতে গিয়েছি। অভিযোগ তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই সাদ্দাম হোসেন জানায়, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।